সার্চ করুন

শনিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২০

ইসলাম ও ইহুদি ধর্মের পার্থক্য

  Admin       শনিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২০

ইহুদি ধর্ম আর ইসলাম ধর্মের অনেক সাদৃশ্য আছে, আবার অনেক পার্থক্যও আছে। এখানে পার্থক্যগুলো নিয়ে লিখবো। ইহুদি শব্দটি এসেছে 'ইয়াহুদা' থেকে। ইয়াকুবের পুত্র এবং ইউসুফের ভাই ছিলেন ইয়াহুদা বা, যিহুদা। আব্রাহাম বা, ইব্রাহিম এই ধর্মের প্রবর্তক বলে ইহুদিদের দাবি। তবে ধর্মতাত্ত্বিকেরা মূসা বা, মোজেসকে এই ধর্মের প্রবর্তক বলে মনে করেন। 


মুসলিমদের মতো ইহুদিরাও একেশ্বরবাদী। ওরাও নামাজ পড়ার মতো উপাসনা করে, হালাল খাবারের মতো কোশের খাবার খায়। এরকম আরো অনেক মিল আছে। 

ইসলাম ও ইহুদি ধর্মের পার্থক্য গুলো কি কি?



এই ধর্মের প্রচারক মুহাম্মদ
এই ধর্মের প্রচারক মূসা বা, মোজেস 
এটি মূলত আরব উপদ্বীপে বেড়ে উঠেছেএটি ইসরাইল, ফিলিস্তিন এবং জর্ডানকেন্দ্রীক

সৃষ্টিকর্তাকে আল্লাহ নামে ডাকে
সৃষ্টিকর্তাকে ইয়াহওয়েহ নামে ডাকে
পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কোরআন

পবিত্র ধর্মগ্রন্থ তোরাহ

দ্বিতীয় উৎস হাদিসদ্বিতীয় উৎস তালমুদ
ধার্মিক মুসলিমরা শরীয়াহ আইন মেনে চলে

ধার্মিক ইহুদিরা হালাকাহ আইন মেনে চলে

ইহুদিদের কিতাবি বলা হয়। ইসলাম সত্য ধর্ম

ইসলাম ধর্মকে ইহুদি ধর্মের অপভ্রংস হিসেবে দেখা হয়


(তথ্যগুলো researchgate.net এ স্কট ভিটকোভিচ এর লেখা থেকে সংগ্রহ করা) 


এর বাইরে ইহুদি কোশের খাবারের ভেতর উটের মাংস নেই, যা মুসলিমরা হালাল খাবার হিসেবে খায়। যিশুকে মুসলিমরা মেসিয়াহ বলে মানে, ইহুদিরা তাকে সাধারণ একজন ইহুদি রাবাই হিসেবে দেখে। জন্মের অলৌকিকতা মানে না। 

সেমেটিক এবং ভারতীয় ধর্মগুলো নিয়ে আরো অনেকগুলো লেখা এই সাইটে আমরা লিখেছি। আপনাদের যদি আগ্রহ থাকে আরো অনেক কিছু সম্পর্কে লিখে বাংলায় ধর্ম বিষয়ক তথ্য আরো সমৃদ্ধ করার পরিকল্পনা আমদের আছে। নিচে কমেন্ট করে আপনাদের মতামত জানাতে পারেন।  

logoblog

এই লেখাটি পড়ার জন্য ধন্যবাদঃ ইসলাম ও ইহুদি ধর্মের পার্থক্য

Newest
You are reading the newest post
পরের পোস্ট
Next Post »

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

লেখাটি যদি পড়ে থাকেন, তাহলে আপনার মন্তব্য প্রত্যাশা করছি। সমালোচনা, পরামর্শ কিংবা, প্রাসঙ্গিক যেকোন মত প্রকাশকে আমরা স্বাগত জানাই।