সার্চ করুন

সোমবার, ২৪ জুন, ২০১৯

ইব্রাহিমীয়(সেমেটিক) ধর্ম বা, আব্রাহামিক ধর্ম

  Admin       সোমবার, ২৪ জুন, ২০১৯

আব্রাহামিক ধর্ম শব্দটি শুনলেই প্রথমেই যেটি মাথায় আসে সেটি হচ্ছে এটি আব্রাহামের সাথে সম্পর্কিত কিছু। হ্যাঁ, ঠিকই ধরেছেন- বাইবেল এবং কুরআনের একটি চরিত্র আব্রাহাম বা, ইব্রাহিম। প্রধান আব্রাহামিক ধর্মগুলো হচ্ছে- খ্রিস্ট , ইসলাম এবং ইহুদি। এছাড়া বাহাই, রাস্তাফারি বা, মর্মনিজম এগুলোকে এই প্রধান ধর্মগুলোর শাখা হিসেবেও ধরে নেয়া যায়।

আব্রাহামিক ধর্মগুলোর মৌলিক বৈশিষ্ট্য

কিছু বিষয় এই ধর্মগুলোর মাঝে সাধারণ বৈধিষ্ট্য হিসেবে দেখা দেয়। চলুন এরকম কিছু বিষয় জেনে নেই-
  1. সৃষ্টিকর্তা একজন, শুধুমাত্র তারই উপাসনা করা উচিত। খ্রিস্টানদের ট্রিনিটিকে অনেকে বহুত্ববাদ বললেও সেক্ষেত্রে একাধিক সৃষ্টিকর্তার অস্তিত্ব বা, উপাসনা করা হয় না।
  2. অনেক নবীই এই ধর্মগুলোতে কমন
  3. সবাই নবী আব্রাহামের সৃষ্টিকর্তাকে বিশ্বাস করে(ইয়াহওয়েহ, যিহোভা বা, আল্লাহ)
প্রধান প্রধান আব্রাহামিক ধর্মগুলো আমরা আলোচনা করব-
নিচের চিত্রে কিছু ছোট(অনুসারী বিবেচনায়) আব্রাহামিক ধর্ম, অনুসারী সংখ্যা, প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রতীক দেখে নিন-
ছবির কৃতিত্বঃ Islam90,ছবিটি Creative Commons Attribution-Share Alike 3.0 Unported লাইসেন্সের আওতাভুক্ত। 

প্রধান আব্রাহামিক ধর্মগুলো নিয়ে নিচের Infographic টি দেখতে পারেন-


নূহ বা, নোয়ার মহাপ্লাবনের পরে আব্রাহামকেই অনেকে মনে করেন প্রথম ব্যক্তি যিনি মূর্তিপুজাকে অস্বীকার(কিংবা, বিরোধিতা) করেছিলেন। খ্রিস্টানরা মনে করে তিনিই সর্বপ্রথম ট্রিনিটি প্রত্যক্ষ করেছিলেন, তিনজন ফেরেশতারূপে তার কাছে ত্রিত্ববাদের শিক্ষাই এসেছিলো। মুসলিমরা তাকে জাতির পিতা বলেন, বাইবেলেও তাকে বহু জাতির পিতা বলা হয়। তিনি ছিলেন নূহের পরে প্রথম মুসলিম(মুসলিমদের মতে)।
মৃত্যপরবর্তী জীবনে বিশ্বাস এই ধর্মের অংশ। এটা মনে করা হয় যে এই জীবনের পরে নশ্বর শরীর না থাকলে আত্মা বেঁচে থাকবে, পুনরুত্থিত জীবনে কি ঘটবে সেটা নিয়ে বিভিন্ন ধর্মে মতবিরোধ আছে

তথ্যসূত্রঃ
  1. https://rationalwiki.org/wiki/Abrahamic_religion
  2. https://www.newworldencyclopedia.org/entry/Abrahamic_religions
  3. https://en.wikipedia.org/wiki/Abrahamic_religions
logoblog

এই লেখাটি পড়ার জন্য ধন্যবাদঃ ইব্রাহিমীয়(সেমেটিক) ধর্ম বা, আব্রাহামিক ধর্ম

পূর্বের পোস্ট
« Prev Post
পরের পোস্ট
Next Post »

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

লেখাটি যদি পড়ে থাকেন, তাহলে আপনার মন্তব্য প্রত্যাশা করছি। সমালোচনা, পরামর্শ কিংবা, প্রাসঙ্গিক যেকোন মত প্রকাশকে আমরা স্বাগত জানাই।